মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ১০:২৯ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
নীলফামারীর সৈয়দপুরে ১০০ শয্যা হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স দুইটিই রোগাক্রান্ত, চিকিৎসার উদ্যোগ নেইশাবির ঘটনায় পটুয়াখালীর দুমকিতে ছাত্রদলের প্রতিকী অনশনআন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আর্থিক লেনদেনের ছয়টি অ্যাকাউন্ট বন্ধের অভিযোগবিশ্বনাথের লামাকাজীতে ‘ঘোড়া’ প্রতিকের নির্বাচনী মিছিল ও সভাদুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে পটুয়াখালীতে বহুযাত্রী আহতসিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা চেয়ারম্যান নুনু মিয়া’র মা গুরুতর অসুস্হ, দোয়ার আরজিবিশ্বনাথে নির্বাচনী আচরণবিধি অবহিতকরণ ও মতবিনিময় সভাসিলেটের বিশ্বনাথে উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভাকরোনায় আক্রান্ত ছাতকের ইউএনওসিলেটের বিশ্বনাথে টমটম চালককে চুরিকাঘাত করে গাড়ী ও মোবাইল ফোন ছিনতাই

সৈয়দপুর পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে বাড়ি দখল, শ্লীলতাহানী ও লুটপাটের মামলা

মোঃজাকির হোসেন,নীলফামারী প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৩৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এবার দলবল নিয়ে জোড়পূর্বক বাড়ীতে ঢুকে ঘরের চালের টিন খুলে নেয়া, বাধা দেয়ায় নারীর শ্লীলতাহানীসহ ভাঙ্চুর ও লুটপাটের অভিযোগে মামলা হয়েছে সৈয়দপুর পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি মহসিন মন্ডল মিঠুর বিরুদ্ধে।

নীলফামারীর সৈয়দপুর থানায় এই মামলা করেছেন শহরের বাঙ্গালীপুর দারুল উলুম মাদরাসা মোড় এলাকার মৃত মোজাম্মেল হকের ছেলে মোঃ জাহেদুল ইসলাম মানিক (৪৫)।

রবিবার (৩ জানুয়ারী) রাতে করা ওই মামলায় আরও ৭ জনকে আসামী করা হয়েছে। তারা হলো নিচু কলোনীর ফজলুর রহমান (৫৫), ধোপামাঠের ইসমাইলের ছেলে এরশাদ হোসেন শংকর (৩৩), সবুজ সংঘ মাঠের রফিকুলের ছেলে (চা দোকান) মমিনুল ইসলাম (৩৫), মন্ডলপাড়ার মৃত নান্ডা মিস্ত্রির ছেলে মোঃ ফকির (৪০), বাঙ্গালীপুর নিজপাড়ার গাট্টু মিস্ত্রির ছেলে মোঃ সাদ্দাম (৩৬), পুরাতন বাবুপাড়ার খালেক মিস্ত্রির ছেলে এরশাদ (৩৭) ও একই এলাকার মোঃ আসগার আলীর (চেন কুপি মিস্ত্রি) ছেলে মোঃ নাদিম (৩৪)।

লিখিত অভিযোগে বাদী উল্লেখ করেছেন যে, বাঙ্গালীপুর নিজপাড়ার (সর্দারপাড়ার) আলহাজ্ব মোঃ মতিউর রহমান (কালু) এর ছেলে মোঃ মাসুমের রেলওয়ের লিজকৃত জমিতে অবস্থিত বাসায় তিনি ভাড়াটিয়া হিসেবে দীর্ঘ দিন ধরে বসবাস করছেন। আসামীরা ওই বাড়িটি দখলে নিতে অনেকদিন থেকে নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছে।

এরই জের ধরে গত ৩ জানুয়ারি সকাল ৬ টায় পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি মহসিন মন্ডল মিঠুসহ ৮ জন আসামী আরও অজ্ঞাতনামা ২০/৩০ জন ভাড়াটিয়া সাঙ্গপাঙ্গকে সাথে নিয়ে পূর্বপরিকল্পনা মতে বাড়িতে জোরপূর্বক প্রবেশ করে। এসময় তাদের হাতে লাঠিসোটা, লোহার রড, ধারালো ছোড়া জাতীয় দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র ছিল।

মিঠুর হুকুমে ঘরের চালের টিন খুলে নেয়াসহ দরজা, আলমিরা ভাঙ্চুর করে প্রায় ৫৫ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করে। এসময় মানিকের স্ত্রী মোছাঃ সুলতানা আক্তার স্বপ্না (৩৫) বাধা দিলে ৩ নং আসামী ধোপামাঠের ইসমাইলের ছেলে এরশাদ হোসেন শংকর (৩৩) তার চুলের মুঠি ধরে এলোপাথাড়ি মারপিট করে ধাক্কা দেয়।এতে স্বপ্না মাটিতে পড়ে গেলে শংকর ঘরে ঢুকে আলমিরার তালা ভেঙে নগদ ৮৫ হাজার টাকাসহ ২ লাখ ১২ হাজার টাকা মূল্যের বিভিন্ন স্বর্ণালংকার চুরি করে নিয়ে যায়।

পরে চিৎকার শুনে বাঙ্গালীপুর নিজপাড়ার মৃত অফি মামুদের ছেলে মোঃ কানজুরুল ইসলাম (৪২), তার স্ত্রী মোছাঃ নাজিরা বেগম (৩৪), মোঃ হালিমের স্ত্রী শামসুন্নাহার বেগম (৩২), মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে মোঃ শফিকুল ইসলাম শফি (৬৫), মৃত সালাউদ্দিনের ছেলে মোঃ সুমন (২৮) এগিয়ে এসে আমাদের হামলাকারীদের কবল থেকে উদ্ধার করে। যারা মামলায় সাক্ষী হিসেবে রয়েছে। উক্ত সাক্ষীদের উপস্থিতির ফলে মিঠু বাহিনী ঘটনাস্থল থেকে চলে যায়। কিন্ত যাওয়ার সময় মিঠু মামলা দিয়ে হয়রানীকরা সহ লাশ গুম করার হুমকি দেয় এবং এঘটনায় আইন আদালত না করার জন্যও হুশিয়ার করে।

সোমবার বিকাল ৫ টায় বাদী জাহেদুল ইসলাম মানিক নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের জানান, মিঠু একজন চিহ্নিত ভূমিদস্যু। সে অত্র এলাকার অধিকাংশ রেলওয়ের জমি, কোয়াটার দখল করে বিক্রির হোতা। একইভাবে আমার বসবাসকৃত বাসাটিও দখল করতে চায়। নয়তো ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করেছে। না দেয়ায় দলবল নিয়ে এমন বেআইনি চেষ্টা চালিয়েছে। সরকার দলীয় রাজনীতির সাথে জড়িত হওয়ায় সেই প্রভাব খাটিয়ে সে এসব করে। এবার চৌধুরীর কাছ থেকে ২ লাখ টাকা নিয়ে তাকে দখল করে দেওয়ার জন্য এই হামলা চালিয়েছে। আমরা এর বিচার চাই।

মানিকের স্ত্রী স্বপ্না বলেন, আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। থানায় অভিযোগ দিলেও পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা না নেয়ায় উল্টো ভয়ভীতি দেখানোসহ প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে প্রধান আসামী মিঠু। সোমবার ভোরেও সে বাসায় এসে তার নাম মামলা থেকে বাদ দেওয়ার জন্য বলেছে। নয়তো ভালো হবেনা বলে হুশিয়ার করে গেছে।

এব্যাপারে মহসিন মন্ডল মিঠুকে তার বাড়িতে ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে না পেয়ে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মূলতঃ বাড়িটি নিচু কলোনীর ফজলুর রহমান চৌধুরীর। মানিক ওই বাসায় দীর্ঘ দিন থেকে ভাড়া থাকে। চৌধুরীর অসুস্থতার সুযোগে মানিক গত প্রায় ৩০ মাস যাবত ভাড়া দিচ্ছেনা। বিষয়টি নিয়ে একাধিকার স্থানীয়ভাবে শালিস হয়েছে। ভাড়া মিটিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েও বার বার সে প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছে। এবার সে ভুয়া কাগজ তৈরী করে বাড়িটি তার বলে দাবী করছে। চৌধুরীকে টাকা দিয়েছে বলেও মিথ্যেচার করছে। ঘটনার দিন সকালে চৌধুরী বাসার সামনে এসে বার বার ডাকাডাকি করলেও মানিক বা তার স্ত্রী দরজা না খোলায় প্রতিবেশী ও এলাকাবাসীদের জানালে আমরা সকলে সমবেত হয়ে বিষয়টি সুরাহার জন্য চেষ্টা করেছি মাত্র। কোন অনধিকার প্রবেশ, ভাঙ্চুর বা লুটপাটের ঘটনা ঘটেনি। সব মিথ্যে ও বানোয়াট। চৌধুরীর উপকার করতে যাওয়ায় আমাকে ফাঁসানো হয়েছে।

ফজলুর রহমান চৌধুরী বলেন, বাড়িটি আমার জমিদারি জায়গায় অবস্থিত। পাশে রাস্তার সাথে রেলওয়ের ও সিএনবি’র কয়েক ফুট জায়গা আছে। সেগুলোও নিয়মতান্ত্রিকভাবে আমার নামেই লিজ নেওয়া। মানিক ভাড়াটিয়া হয়ে চরম বিশ্বাসঘাতকতা করেছে। ৩০ মাস ধরে ভাড়াতো দেয়না। তার উপর এখন পুরো বাড়িই দখলের পায়তারা করছে। জনৈক মাসুমের প্ররোচনায় সে এমন অবৈধ পথে পা বাড়িয়েছে। রবিবারের ঘটনা বিষয়ে তিনি বলেন, আমি এসব কিছুই করতে চাইনি। মিঠু আমাকে ডেকে নেওয়ায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তবে এছাড়া আর কোন উপায়ও ছিলনা। একাধিক অভিযোগ করেও মানিকের কোন ব্যবস্থা করতে না পারায় অনেকটা বাধ্য হয়েই মিঠুর কথামত কাজ করেছি।

সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল হাসনাত খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আজকে সকালে থানায় মামলাটি রজু করা হয়েছে। আসামীরা পলাতক রয়েছে। তবে তাদের গ্রেফতার করতে অভিযান চালানো হচ্ছে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000