মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ১১:৫৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বিশ্বনাথের লামাকাজীতে ২নং ওয়ার্ডে চেয়ারম্যান প্রার্থী আছকিরের উঠান বৈঠকবিশ্বনাথ উপজেলা চেয়ারম্যানের মায়ের সুস্থতা কামনায় মিলাদ ও দোয়ানীলফামারীর সৈয়দপুরে ১০০ শয্যা হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স দুইটিই রোগাক্রান্ত, চিকিৎসার উদ্যোগ নেইশাবির ঘটনায় পটুয়াখালীর দুমকিতে ছাত্রদলের প্রতিকী অনশনআন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আর্থিক লেনদেনের ছয়টি অ্যাকাউন্ট বন্ধের অভিযোগবিশ্বনাথের লামাকাজীতে ‘ঘোড়া’ প্রতিকের নির্বাচনী মিছিল ও সভাদুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে পটুয়াখালীতে বহুযাত্রী আহতসিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা চেয়ারম্যান নুনু মিয়া’র মা গুরুতর অসুস্হ, দোয়ার আরজিবিশ্বনাথে নির্বাচনী আচরণবিধি অবহিতকরণ ও মতবিনিময় সভাসিলেটের বিশ্বনাথে উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা

সৈয়দপুরে শপথ নেওয়ার আগেই নবনির্বাচিত মেম্বারদের কম্বল হস্তান্তর করলো ইউপি সচিব

মোঃজাকির হোসেন,নীলফামারী প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ জানুয়ারী, ২০২২
  • ২৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

শপথ নেওয়ার আগেই নবনির্বাচিত মেম্বারদের দিয়ে কম্বল বিতরণ করলো ইউপি সচিব। বিধি অনুযায়ী গেজেট না হওয়া পর্যন্ত রানিং চেয়ারম্যান মেম্বাররাই সার্বিক দায়িত্ব পালন করবেন।



নতুন পরিষদ গঠন ও দায়িত্ব গ্রহনের পরই নবনির্বাচিতরা নিয়মিত কার্যক্রম শুরু করতে পারবেন। বিশেষ করে সরকারী কর্মকান্ডে এর আগে কোনভাবেই তাঁরা সম্পৃক্ত হতে পারবেন না।

এই নিয়মকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজস্ব ক্ষমতাবলেই একাজ করেছেন নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের সচিব মোঃ মোখছেদুল ইসলাম। এতে বর্তমান চেয়ারম্যান মেম্বারদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে এবং এলাকায় ব্যাপক সমালোচনা চলছে।

সূত্র মতে, গত নভেম্বর মাসে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) মাধ্যমে ৫ টি ইউনিয়ন পরিষদে বিতরণের জন্য কম্বল বরাদ্দ দেওয়া হয়। এতে কামারপুকুর ইউনিয়ন পরিষদ ৩৭০ পিস কম্বল পায়। কিন্তু সেসময় নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা হওয়ায় বিতরণ স্থগিত রেখে কম্বলগুলো ইউপি সচিবের অধীনে রাখা হয়।

গত ২৬ ডিসেম্বর ইউপি নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যানসহ অধিকাংশ ওয়ার্ড মেম্বার পরাজিত হয়। বেসরকারিভাবে নব নির্বাচিতদের শপথ ও সরকারী গেজেট এখনও প্রকাশ হয়নি। এমতাবস্থায় আগের চেয়ারম্যান ও মেম্বাররাই দায়িত্বে রয়েছেন। এখনও সকল কাজে তাদের স্বাক্ষরই কার্যকর, নতুনরা এক্ষেত্রে সম্পূর্ণভাবে অকার্যকর ও অবৈধ।

তারপরও কামারপুকুর ইউনিয়নের সচিব মোঃ মোখছেদুল ইসলাম উপজেলা প্রশাসন বা পিআইও অফিসের নির্দেশনা বা পরামর্শ ছাড়াই সম্পূর্ণ নিজস্ব ক্ষমতায় সরকারী কম্বলগুলোর নবনির্বাচিতদের কাছে হস্তান্তর করেছেন। ৩৭০ পিসের মধ্যে নতুন ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বার বাটুকে ১০ পিস, ৯ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মুরসালিনকে ১০ পিস কম্বলসহ নতুন ১২ জনকেই স্লিপ দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে ৯ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মুরসালিনের সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি বলেন, সচিব মোখছেদুল চৌকিদার সাইফুলের মাধ্যমে ১০ টি কম্বলের স্লিপ বাড়িতে পাঠিয়ে ছিলেন। সেগুলো বিতরণও করেছি। শপথ নেওয়ার আগে কি এভাবে সরকারী ত্রাণ নিতে পারেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, জানিনা। তবে এমন নিয়ম না থাকলে সচিব কিভাবে দিলেন তা সেই জানেন।

বর্তমান চেয়ারম্যান রেজাউল করিম লোকমান বলেন, এখনও আমরা পুরাতনরাই দায়িত্বে আছি। নতুনরা এখনও শপথ বা দায়িত্ব নেয়নি। এতে তাঁরা কোনভাবেই বিতরণ, বিভাজন তথা কোন প্রকার কার্যক্রমেই অংশ নিতে পারবেন না। অথচ ইউপি সচিব মোখছেদুল ইসলাম উর্ধ্বতন প্রশাসন ও আমাকে না জানিয়েই তাদেরকে কম্বল দিয়েছেন। তিনি কোন ক্ষমতাবলে এমন বেআইনি কাজ করেছেন তা সেই ভালো জানেন। আমাকে উপেক্ষা করে তিনি নিজের পছন্দের লোকজনকেও নিয়ম বহির্ভূতভাবে স্লিপ দিয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

ইউপি সচিব মোখছেদুল ইসলাম প্রথমে নবনির্বাচিতদের কম্বলের স্লিপ দেওয়ার কথা অস্বীকার করেন। পরে প্রমাণ উপাস্থাপন করলে তিনি বলেন, নিয়মতান্ত্রিকভাবেই কম্বলের স্লিপ বিতরণ করা হয়েছে। পুরাতনদেরই মূলতঃ বেশী দিয়েছি। নতুন ৪-৫ জনকে অনার করে কিছু দেয়া হয়েছে। এতে নিয়মের কোন ব্যত্যয় তো দেখিনা। ইচ্ছেমত নিজের লোকজনকে স্লিপ দিয়েছেন এমন অভিযোগ বিষয়ে তিনি উল্টো প্রশ্ন করেন, আত্মীয় স্বজন গরীব থাকলে কি তাদের দিতে পারবোনা? ইউএনও’র স্যারের সাথে পরামর্শ করেই সব করা হয়েছে।

সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম হুসাইন বলেন, পুরাতনদের মাধ্যমেই কম্বল বিতরণের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তারপরও ইউপি সচিব নবনির্বাচিতদের দিয়ে থাকলে সে ব্যাপারে তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000