বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বিশ্বনাথে বিভিন্ন স্থানে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন এসএম নুনু মিয়াবিশ্বনাথে বন্যার্তদের মাঝে বেইত আল-খাইর সোসাইটি’র খাদ্যসামগ্রী বিতরণবিশ্বনাথে আশ্রয়ণ প্রকল্পে এসএম নুনু মিয়ার এান ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণসাংসদ আদেলের বরাদ্দে খাতামধুপুরের সুতারপাড়াবাসী পেলো হেরিং বোন রাস্তারাজনগরে ভোটার তালিকা হালনাগাদ সমন্বয় কমিটির সভাএনটিভির ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে খাবার বিতরণ ও চিকিৎসা সহায়তা প্রদানবিশ্বনাথে বন্যার্তদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার এান ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন নুনু মিয়ারাজনগরে কৃষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও কৃষি অফিসারের কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধনবিশ্বনাথে থানা পুলিশের উদ্যোগে খাদ্যসামগ্রী বিতরণছাতকে ইমাম মোয়াজ্জিন গণকে খাদ্য সামগ্রী উপহার দিলেন সাহেল

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে, আহত ৬

রিপোটারের নাম
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৩ জুন, ২০২১
  • ২৭২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ৬জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে উপজেলার উপজেলার পৈলনপুর গ্রামের নানু মিয়ার কিশোর ছেলে মোরসালিনকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতলে ভর্তি করা হয়েছে। অপরদিকে সোহেলা গ্রামের প্রয়াত জালাল উদ্দিনের ছেলে আব্দুল হেকিমকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বুধবার রাতে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে উপজেলা বাদাঘাট বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় দু’পক্ষের পাল্টাপাল্টি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

ঘটনার পর থেকে দুটি পরিবারের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা ও আবারও সংঘর্ষের আশংকায় বাদাঘাট বাজার ও তার আশপাশ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে এলাকায় বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশসহ অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানান, তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবদুল লতিফ তরফদার।

বাদাঘাট বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, উপজেলার পৈলনপুর গ্রামের নানু মিয়ার কিশোর ছেলে মোরসালিকে সোহালা গ্রামের আব্দুর নুরের ছেলে আল আমিন ও চাচাত ভাই শান্ত পূর্ববিরোধের জের ধরে বুধবার রাতে বাদাঘাট বাজারে মারধর করে গুরুতর আহত করে। ঘটনার খবর পেয়ে মোরসালিনের পরিবারের লোকজন সোহালা গ্রামের শান্তর বাবা আব্দুল হেকিমের ওপর হামলা করে তাকেও গুরুতর আহত করে। এ ঘটনার পরেই দু পক্ষের পরিবারের দু-তিন শত লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বাজারে আবারও সংঘর্ষের প্রস্তুতি নিতে চাইলে বাজারের দোকানপাট ভাঙচুর ও লুটপাটের আশঙ্কায় ব্যবসায়ীরা তাদের দোকানপাট দ্রুত বন্ধ করে দেয়।

রাতেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৯ রাউন্ড শর্টগানের ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে এবং কঠোর পদক্ষেপ নিলে দুটি পরিবারের উত্তেজিত কয়েকশ লোকজন সংঘর্ষের প্রস্তুতি নিয়ে থাকলেও রাতেই বাজার ছেড়ে যেতে বাধ্য হন। তাহিরপুর থানার ওসি মোঃ আব্দুল লতিফ তরফদার জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৯ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে। বাদাঘাট বাজারে এখনও পুলিশ অবস্থা করছে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000