মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১২:৪১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
শোক দিবস উপলক্ষ্যে বিশ্বনাথের লামাকাজী ইউপি আ’লীগের সভা ও দোয়া মাহফিলপটুয়াখালীতে মিথ্যা বানোয়াট ও ভুয়া সনদপত্র দিয়ে দীর্ঘ দিন চাকুরী ও অবসর ভাতা গ্রহণের অভিযোগ উঠেছদেওয়ান বাজার ইউনিয়ন জামায়াতের ঢেউটিন বিতরণশোক দিবস উপলক্ষ্যে বিশ্বনাথ পৌর কৃষক লীগের সভা ও দোয়া মাহফিলনন গিয়ার সাইকেল দিয়ে অদম্য সাহসী যুবকের ১০০তম সেঞ্চুরি রাইড সম্পন্নবকশীগঞ্জের চন্দ্রাবাজ আল নূর জামে মসজিদের নির্মাণ কাজের উদ্বোধনবিশ্বনাথে শিক্ষার্থীদের ‘আলতাফ-আফিয়া ট্রাস্ট’র বৃত্তি প্রদান করেন নুনু মিয়াসিলেট মিডিয়া কর্পোরেশন ও ফেঞ্চুগঞ্জ উত্তর কুশিয়ারা আন্তজার্তিক অনলাইন গ্রুপ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের ঢেউটিন দিলোপটুয়াখালীর দুমকিতে কৃষককে ‘অপহরণের চেষ্টার সময়’ আটক-১বিশ্বনাথে পিএফজি’র ফলোআপ সভা অনুষ্টিত

সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে আগামী জুন মাসে এসএসসি পরীক্ষা

অনলাইন ডেস্ক:
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৩৮৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা আগামী জুন মাসে হবে। করোনাকালীন সময়ে দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় পরীক্ষার জন্য একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে। নবম-দশম শ্রেণির প্রতিটি বিষয় থেকে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ কমিয়ে এ সিলেবাস তৈরি করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন দেয়া হলে সেটি শিক্ষাবোর্ডগুলো থেকে প্রকাশ করা হবে বলে জানা গেছে।

করোনা পরিস্থিতির কারণে গত ১০ মাস যাবত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। ২০২০ সালের পঞ্চম, অষ্টম ও এইচএসসি পরীক্ষা বাতিল করে অটোপাস দেয়া হয়েছে। চলতি শিক্ষাবর্ষের এক মাস প্রায় শেষ হতে চলেছে কিন্তু এখনো বন্ধ রয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। কয়েক দফায় আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হয়েছে। এসএসসি-সমমান ও এইচএসসি-সমমান পরীক্ষার্থীদের সিলেবাস শেষ করতে ফেব্রুয়ারি মাস থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। শিগগিরই এ বিষয়ে ঘোষণা আসতে পারে।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সরকার সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে চলতি বছরের এসএসসি-সমমান পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ লক্ষ্যে নবম-দশম শ্রেণির সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করতে প্রতিটি বিষয়ের জন্য দুইজন সিনিয়র শিক্ষক, এনসিটিবির একজন বিষয়ভিত্তিক বিশেষজ্ঞ মিলে একটি দল গঠন করা হয়। এভাবে প্রতিটি বিষয়ের জন্য তিন সদস্যের একটি করে দল গঠন করে সিলেবাস সংক্ষিপ্তকরণের কাজ করা হয়েছে।

নবম-দশম শ্রেণির মোট ৩৬টি পাঠ্যবইয়ের জন্য নতুন সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে। তার মধ্যে নবম শ্রেণিতে পড়ানো হয়েছে এমন বিষয়ের মধ্যে যেগুলোর সঙ্গে দশম শ্রেণির বিষয়ের মিল রয়েছে, সেসব বাদ দেয়া হয়েছে। এ স্তরের সঙ্গে একাদশ শ্রেণির সঙ্গে মিল রয়েছে সেগুলোরও কিছু বাদ পড়েছে। তবে পরের স্তরের সঙ্গে যে বিষয়গুলো যুক্ত রয়েছে এবং নবম-দশম স্তরে যে বিষয়গুলো শেখা ও জানা প্রয়োজন, সেগুলোর আলোকে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি করা হয়েছে। প্রতিটি বইয়ের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ বিষয়বস্তু সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে কমানো হয়েছে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000