শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বকশীগঞ্জে সাংবাদিকদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের নবাগত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মতবিনিময়সৈয়দপুরে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেল ইজিবাইক চালকের ছেলে নয়ননীলফামারীর সৈয়দপুর ট্রেনে কাটা পড়ে যুবকের শরীর তিন খন্ডদুমকিতে আর্জেন্টিনা সমর্থকদের আনন্দ শোভাযাত্রানীলফামারীর সৈয়দপুরে ৫ টি দোকান আগুনে পুড়ে ছাই, ২০ লাখ টাকার ক্ষতিওসমানীনগরে বাড়ির উঠান দিয়ে রাস্তা নিতে প্রতিবন্ধি পরিবারে হামলানীলফামারীর সৈয়দপুরে থানা ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠিতছাত্রদল নেতা নয়ন হত্যার প্রতিবাদে সৈয়দপুরে বিএনপি বিক্ষোভ সমাবেশওসমানীনগরে কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণবালাগঞ্জে ফ্রান্স প্রবাসী কমিউনিটি নেতা সুমন এর পিতৃবিয়োগ

নয়াবন্ধরে সাবেক চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে প্রবাসীর বাড়ি ভাংচুর; নিরাপত্তাহীণতায় বাড়ির মালিক

ওসমানীনগর প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২১ মে, ২০২২
  • ১৮২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

ওসমানীনগরের সিমান্তবর্তি নয়াবন্দর বাজারে পূর্ব বিরোধের জেরে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান দ্বীনুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে শত শত মানুষ নিয়ে “লিল্লাহে তাক্ববির” ধ্বনি দিয়ে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসী পরিবারের মৌরসীপাট্টা সম্পত্তিতে ৪ টি ঘর ও সংীশ্লষ্ট কাজের টিকাদারের ১টি ঘর সহ এবং বাড়ির সীমানা প্রাচীর ভাংচুর করেছে।



এতে প্রায় ১কোটি ২০লক্ষ টাকার ক্ষতি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। ঘটনার পর থানায় মামলা হলে অভিুক্ত আসামীরা জামিনে ছাড়া পেয়ে এলাকায় এসে প্রতিপক্ষ লোকজনদের এলাকা ছাড়ার হুমকি দিচ্ছেন বলে জানান ভূক্তভোগিরা। প্রভাবশালী এ চক্রের আক্রমন থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের সহযোগীতা চেয়েছেন ভূক্তভোগি ৩টি পরিবার।

জানা যায়, গত ২৭ এপ্রিল রাতে নয়াবন্দর বাজারের জহিরপুর গ্রামে সাবেক চেয়ারম্যান প্রভাবশালী দ্বীনুল ইসলাম বাবুল ও তার সহযোগী আজিজুর রাজা চৌধুরী ওরফে আনা, শাহনাজ চৌধুরী, সৈয়দ এনামুল হক, সুজেল আহম্দ ও রেজা রাজা চৌধুরীর নেতৃত্বে শত শত লোক জড়ো হয়ে যুক্তরাজ্য প্রবাসী শেখ আব্দুল হক তারেক মিয়া ও মোঃ সিরাতুল আম্বিয়া টিপুর মৌরসী মালিকানাধীন বাগান বাড়ীতে ৪টি ঘর ও সীমানা প্রাচীর এবং সংশ্লিষ্ট কাজে নিয়োজিত টিকাদারের পৃথক ১টি বাড়িতে ট্রাকযোগে এক্সেভেটর মেশিন দিয়ে হামলা চালিয়ে ৫টি ঘর ভাংচুর করা হয়। এসময় দ্বীনুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে শত শত লোকজন জড়ো হয়ে ”লিল্লাহে তাক্ববির,আল্লাহু আকবার’ ধ্বনি দিয়ে ঘরবাড়ি সীমানা প্রাচীর ভাংচুর করে প্রায় ১কোটি বিশ লক্ষ টাকার ক্ষতি করেন। ঘটনার পর ২৯ এপ্রিল বাড়ির মালিক সিরাতুল আম্বিয়া টিপু বাদী হয়ে সাবেক চেয়ারম্যান দ্বীনুল ইসলাম বাবুলকে ১নম্বর আসামী করে ২৮ জনকে এজাহারভূক্ত আসামি দিয়ে থানায় একটি মামলা (নং-১৩) দায়ের করেন। মামলার পর আসামিরা এলাকা থেকে গা ঢাকা দেন। কিন্তু ইদানিং আসামিরা কোর্ট থেকে জামিনে ছাড়া পেয়ে এলাকায় এসে মামলার বাদীকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিচ্ছে। তাছাড়া মামলার স্বাক্ষী ও বাড়ির সীমানা প্রাচীর নির্মাণে সংশ্লিষ্ট টিকাদারকে এলাকা ছাড়ার জন্য হুমকি দিচ্ছেন।

অন্যদিকে মামলার আসামি আজিজুর রাজা চৌধুরী আনা, আব্দুস সামাদ রানা মিয়া এবং নুরুল ইসলাম গোলাব আলী জামিনে মুক্তি পেয়ে এসে ভূমির মালিক সিরাতুল আম্বিয়া টিপুর বিরুদ্ধে কোর্টে ৭ধারায়পৃথক ৩টি মামলা দায়ের করেছেন।

ভূমির মালিক সিরাতুল আম্বিয়া টিপু বলেন, জহিরপুর মৌজার জেএল নং- ১১১, খতিয়ান নং- ২৩০, দাগ নং- ৩৯০,পরিমান ০.১৬ একর, খতিয়ান নং- ১৪৮, দাগ নং- ৩৯০ পরিমান ০.১৮ একর, দাগ নং ৩৯০ পরিমান ০.১৪ একর সর্বমোট- ০.৪৮ একর বা আট চলি­শ শতক ভূমি আমাদের পারিবারিক মৌরসী সম্পত্তি। ৫৬’র রেকর্ড থেকে হালনাগাদ প্রিন্ট পর্চা পর্যন্ত আমাদের দখলে থাকা ভূমির আমরাই মালিক। কিন্তু ইদানিং সাবেক চেয়ারম্যান দ্বীনুল ইসলাম বাবুল বাহিনী অন্যাভাবে জোর পূর্বক আমাদের মৌরসী সম্পত্তি দখলের পাঁয়তারা করছেন।

গত ২৭ এপ্রিল রমজান মাসে রাতে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ট্রাক যোগে ভাড়াটে লোক এনে এক্সেভেটর মেশিন দিয়ে আমার বাগান বাড়ি ভাংচুর কওে দখল করার চেষ্টা করেছেন। আমি তাদেও বিরোদ্ধে মামলা দিয়েছি। আসামিরা জামিনে এসে আমাকে মামলা তুলে নিতে এবং মামলার স্বাক্ষীদের স্বাক্ষী না দিতে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন। যুক্তরাজ্য প্রবাসী শেখ আব্দুল হক তারেক মিয়া’র বাড়ির কেয়ারটেকার আমির আলী বলেন, রমজান মাসে রাতে বাবুল চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে শত শত লোকজন তকবির দিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করে ভাংচুর করেন। বর্তমানে তারা আমাকে আমার আত্মীয় তারেক এর বাড়িতে আসতে নিষেধ বকরছেন। তারা আমাকে প্রতিনিয়ত হুমকি দিয়ে আসছেন।

তারেক ও টিপুর বাড়ির সীমানা প্রাচীর নির্মাণের টিকাদার মনোয়ার খান বলেন, আমি তারেক ও টিপুর বাড়ির বাউন্ডারি নির্মান করেছি। এই অপরাধে বাবুল চেয়ারম্যান লোকজন নিয়ে রাতে আমার বাড়িতে এসে ভাংচুর করেছেন। আমি গরীব লোক, পেটের জন্যে কাজ করি। আমার টিনশেডের ঘরখানা অন্যায়ভাবে তারা ভাংচুর করেছেন। এর আমার প্রাণের নিরাপত্তা চাই। আজিজুর রাজা চৌধুরী আনা বলেন, আব্দুস সামাদ রানা মিয়া ও নুরুল ইসলাম গোলাব আলী বলেন, ১৯৮১ সালে গ্রামের ১৫ জন বিশিষ্ট মুরব্বী ৪৮৬ নং দাগে ৫০শত ভূমি জহির পুর মসজিদে দলিল করে দেন।

জহিরপুর মসজিদ অন্যত্র হওয়ায় আমরা এই ভূমিতে মক্তব নির্মাণ করি। সিরাতুল আম্বিয়া টিপু ও তারেকের লোকজন মক্তবের ঘর দরজা ভাংচুর করে আমাদের উপর দায় চাপাতে চেষ্টা করছে। আমরা বাড়ি ঘর প্রাচীর ভাংচুর করিনি। বাড়ি ভাংচুরের মামলার প্রধান আসামি সাবেক চেয়ারম্যান দ্বীনুল ইসলাম বাবুল বলেন, আমার স্ত্রীর হার্ট বাইপাস সার্জারী হয়েছে। আমি এখন তাকে নিয়ে বাড়িতে আসার পথে। এসব নিয়ে কথা বলার সময় এখন আমার নেই।

এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর থানার অফিসার্স ইন্চার্জ মিজানুর রহমান বলেন, নয়াবন্ধরে ঘর বাড়ি ভাংচুর এর বিষয়ে থানায় মামলা হয়েছে। বর্তমানে মামলা তদন্তাধিন রয়েছে। এলাকার পরিবেশ শান্ত আছে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000