মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দক্ষিণঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের পুরন লেবুখালীর পায়রা সেতুর মাধ্যমেচোরাই মোটর সাইকেল সহ চোর গ্রেফতার সৈয়দপুরেএম ইলিয়াছ আলীর সন্ধান কামনায় বিশ্বনাথে দোয়া মাহফিলবিশ্বনাথে এমএ খান সেতুর টুল আদায় সংক্রান্ত জটিলতা নিরসনে সভাতরুণ সমাজকর্মী লিমনের উচ্ছ শিক্ষায় যুক্তরাজ্য গমন উপলক্ষে বিদায়ী সংবর্ধনাবিশ্বনাথে নানান আয়োজনে শেখ রাসেল দিবস ২০২১ পালনবিশ্বনাথের ছরকুম আলী দয়াল হত্যা- পুনঃ তদন্তে পিবিআইশেখ রাসেলের জন্ম দিবস পালিত বকশীগঞ্জ পৌরসভার উদ্যোগেনারী উন্নয়ন ফোরাম সৈয়দপুরের উদ্যোগে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের মাঝে সাইকেল বিতরণডাক্তার ও সেবা নেই – রোগী আছে, হাসপাতাল আছে

নেপালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের হানা নিহত ১ জন

রিপোটারের নাম
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৬ জুন, ২০২১
  • ১০৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্টঃ প্রতিবেশি ভারতে হাজার হাজার করোনা রোগী আক্রান্ত হওয়ার পর প্রাণঘাতী ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে নেপালে প্রথমবারের মতো এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কৃষ্ণ প্রসাদ পাওদেল জানিয়েছেন বর্তমানে দেশটিতে অন্তত দশ জন ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোগী রয়েছেন। ভারতীয় সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যে ভারতের নতুন বিপদ হয়ে দেখা দিয়েছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস। করোনা আক্রান্ত রোগীরা এই ছত্রাকের আক্রমণের শিকার হয়ে অঙ্গহানির পাশাপাশি প্রাণও হারাচ্ছেন। করোনা মহামারির প্রকোপ বৃদ্ধিতে এই ফাঙ্গাসের ভূমিকাকেও দায়ী করা হচ্ছে।

নেপালের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ৬৫ বছর বয়সী ব্যক্তি দেশটির পশ্চিমাঞ্চলে এক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে থাকা এই রোগী গত ৩ জুন মারা যান। তবে তার করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে বলে জানায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এক সময়ে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বেশ বিরল থাকলেও সম্প্রতি তা এশিয়ায় প্রায়ই দেখা যাচ্ছে। এর আক্রমণে রোগী চোখ, নাক, মুখের চোয়াল নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এতে আক্রান্তদের মৃত্যুর হার ৫০ শতাংশের বেশি।

সম্প্রতি ভারতে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে দেশটির লাখ লাখ করোনা রোগীর চিকিৎসায় স্টেরয়েড ব্যবহারকে দায়ী করা হচ্ছে।

এপ্রিলের শুরুতে নেপালে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দ্রুত বাড়তে শুরু করে। মে মাঝের মাঝামাঝিতে দেশটিতে প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা নয় হাজার ছাড়িয়ে যায়। সম্প্রতি আক্রান্তের পরিমাণ কমতে শুরু করলেও দেশটির স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উপর মারাত্মক চাপ অব্যাহত রয়েছে। মহামারি শুরুর পর থেকে দেশটিতে সাত হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

 

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000