শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বিশ্বনাথে ৩ শতাধিক প্রতিবন্ধীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন নুনু মিয়াবেগম খালেদা জিয়া কে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে নীলফামারীর সৈয়দপুরে বিএনপির বিক্ষোভসিলেটে বন্যার্তদের নগদ অর্থ ও ত্রাণ বিতরণ করলেন প্রবাসী কমিউনিটি নেতা শফিক উদ্দিনকুমিল্লার দেবীদ্বার থানার মানবিক অফিসার ইনচার্জ প্রত্যাহারে সাধারণ মানুষের ক্ষোভ প্রকাশবিশ্বনাথে দশঘর ইউনিয়নে বন্যার্তদের ত্রাণ বিতরণ করলেন এসএম নুনু মিয়াওসমানীনগরে ২কোটি টাকা মূল্যের তিনতলা বাসা দখল নিয়ে দু’পক্ষের উত্তেজনাপররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সক্রিয় সম্পৃক্ততার আহ্বানবিশ্বনাথে ‘হাজী তেরা মিয়া ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্ট’র পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী বিতরণজামালপুরের বকশীগঞ্জে অটিজম ও নিউরো ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধিতা বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিতমৌলভীবাজার মুনিয়া নদী থেকে বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার

নীলফামারীতে কঠোর লকডাউনে রাস্তায় নেমেছে প্রশাসন

রিপোটারের নাম
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১
  • ২৯৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

জাকির হোসেন নীলফামারী প্রতিনিধিঃ করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সারা দেশে ন্যায় নীলফামারীতে শুরু হয়েছে কঠোর লকডাউন। এক সপ্তাহের জন্য আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে শুরু হওয়া এই কঠোর লকডাউন কার্যকর করতে পুলিশ, বিজিবির পাশাপাশি সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। সকাল থেকে জেলার ৬ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি সেনাবাহিনী, বিজিবি ও র্যা ব সদস্যদের টহল দিতে দেখা গেছে। পাশাপাশি পুলিশের ১১টি চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।
রাস্তা ঘাট এখন প্রায় ফাঁকা। জেলা শহরগুলোতে জরুরি পণ্যবাহী যানবাহন ছাড়া সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। শুধু জরুরী সেবা অ্যাম্বুলেন্স ও চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে যানবাহন চলাচল করছে। তবে সকালে জেলা শহরের বড় বাজারে সবজি কেনার জন্য ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় দেখা দিয়েছে।

এছাড়া কঠোর লকডাউনের আওতা মুক্ত রয়েছে নীলফামারী উত্তরা ইপিজেড। সেখানে ৩৫ হাজার শ্রমিক কর্মরত। সকালে তারা ইপিজেডে প্রবেশ করেছে। বিকাল ৪টায় তারা নিজ বাড়িতে ফিরবে। একই ভাবে প্রতিদিন শ্রমিকরা ইপিজেড যাবে আর আসবে। এ ব্যাপারে নীলফামারী জেলা সদরের লকডাউন কতখানী সফলতা পাবে এ নিয়ে সচেতন মহল প্রশ্ন তুলেছেন। গত দুই দিনে ইপিজেডে দুইজন চীনা নাগরিক সহ ১২ জন করোনা পজেটিভ হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ইপিজেডে বর্তমানে করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে ১৮ জন। আরও ৩৫০ জনের নমুনা নেয়া হয়েছে।

এদিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে জেলার ৬ উপজেলায় ২ প্লাটুন সেনাবাহিনী ও ২ প্লাটুন ৫৬ বিজিবি মাঠে নেমেছে। রংপুরের খোলাহাটি সেনানিবাস থেকে সেনা সদস্যরা নীলফামারী জেলার দায়িত্ব পালন করছে। এতে খোলাহাটি সেনানিবাসের ১৯ মিডিয়াম রেজিমেন্টের লে.কর্ণেল মেজর মোঃ আরিফের নেতৃত্বে সদর,সৈয়দপুর,ডোমারে ও ২০ মিডিয়াম রেজিমেন্টের লে. কর্ণেল মেজর রাশেদুল আলমের নেতৃত্বে কিশোরীগঞ্জ,জলঢাকা,ডিমলায় সেনাদল মাঠে কাজ করছেন। পাশপাশি ৫৬ বিজিবির লে. কর্ণেল আবদুল্লাহ আল মামুন’এর নেতৃত্ব ২ প্লাটুন টহল দিচ্ছেন। এছাড়া পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের ৬টি গাড়ি টহল দিচ্ছে।

সেনাবাহিনী ও বিজিবি মাঠে নামার বিষয়টি নিশ্চিত করে নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী জানান, লকডাউন সফল করতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে জেলার সদর, ডোমার, ডিমলা, জলঢাকা, কিশোরীগঞ্জ ও সৈয়দপুর উপজেলায় ৪ প্লাটুন সেনাবাহিনী ও ২ প্লাটুন বিজিবি সদস্য কাজ করছেন। এছাড়া পুলিশ, আনসার ও আর্মড পুলিশও মাঠে আছে। তিনি আরো জানান, কোথাও যেন জনসমাগম না হয় বা জনগণ যাতে অযথা বাহিরে না বের হয়ে বাড়িতে অবস্থান করে সে বিষয়ে তারা নজরদারি করছেন। মানুষকে করোনা সম্পর্কে বোঝাচ্ছেন তারা। সেনাবাহিনী ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে জনগণকে বাড়িতে নিজে নিরাপদে থাকার ও অপরকে নিরাপদে রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন। এছাড়া করোনা আতঙ্ককে কাজে লাগিয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম যেন কেউ বাড়াতে না পারেন সে বিষয়টি তারা নিশ্চিত করছেন। স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করেই সেনা সদস্যরা তাদের দায়িত্ব পালন করছেন।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000