সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান বিভাগের সিনিয়র সচিবের দুমকি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শনজায়েদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন, সৎ ও মেধাবী হওয়ার সাথে সাথে উত্তম চরিত্র গঠন করতে হবে তালামিয কর্মীদের—প্রতিবছরই নেওয়া লাগতে পারে করোনার টিকাএকাধিক মামলার আসামী মাদক ব্যবসায়ী রাশেল মিয়া ওরফে সুমন গ্রেফতারমুজতবা হাসান চৌধুরী নুমান বলেছেন একটি আদর্শ সমাজ গঠনে এক দল পরিশুদ্ধ মানুষ প্রয়োজনবিশ্ব নদী দিবস উপলক্ষে বিশ্বনাথের মাকুন্দা নদীতে নৌ-যাত্রা৩ সপ্তাহ যাওয়ার ৩ তিন কোটি টাকার রাস্তায় ফাটলউত্তর কুশিয়ারা আন্তর্জাতিক অনলাইন গ্রুপের বাংলাদেশ সমন্বয় কমিটির পক্ষ থেকে সাইদুল ইসলাম মিনুরকে সংবর্ধনা প্রধানবিদ্যালয়ের ভবন উদ্ভোধন উপলক্ষ্যে বিশ্বনাথে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিলচেতনানাশক খাইয়ে পটুয়াখালীতে তাবলীগ জামাত সদস্যদের মালামাল লুট

জুড়ীতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ২ থেকে আড়াই কোটি টাকার  ক্ষয়ক্ষতি

ডেস্ক রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৭ মে, ২০২১
  • ১৩৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ২ থেকে আড়াই কোটি টাকার  ক্ষয়ক্ষতির আশংকা করা যাচ্ছে। প্রায় দুই ঘন্টা কুলাউড়া, বড়লেখা এবং রাজনগরের ফায়ার সার্ভিসের ৬ টি ইউনিটের যৌথ সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

রবিবার ( ১৬ মে) রাত ৮ টার দিকে উপজেলার চৌমুহনীর এম এ মোমিত আসুক চত্বরের পাশে করিম মিষ্টির বক্স তৈরীর দোকান থেকে  এ অগ্নিকান্ড ঘটে। পরে তা ছড়িয়ে পড়ে পাশ্ববর্তী গ্যাস সিলিন্ডারের গোদাম এবং পেট্রোলিয়াম জাতীয়   দোকানে। সেখান থেকে আগুন ছাড়িদিকে ছড়িয়ে পড়ে।এতে টানা প্রায় আড়াই ঘন্টা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের ধারণা, সিগারেটের অংশ থেকে আগুন করিম মিষ্টির বক্স তৈরীর দোকানে লেগে যায়,মুহুর্তের মধ্যে তা পাশ্ববর্তী আর এন পেট্রোলিয়াম দোকান ও শরীফ গ্যাস সিলিন্ডারের দোকানে ছড়িয়ে পড়লে তা নিয়ন্ত্রণের বাহিরে চলে যায়। প্রথমে কুলাউড়া ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম আসলে তারা ঘন্টাখানেক কাজ করার পরও আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে না পেরে বড়লেখা ফায়ার সার্ভিসের আরেকটি টিম আসে। এরপর রাজনগরের ফায়ার সার্ভিসের টিম এসে তাদের সহযোগিতা করে।

আগুনে শরীফ গ্যাস সিলিন্ডারের দোকান, আর এন পেট্রোলের দোকান ও করিম মিষ্টির বক্স তৈরীর দোকান সম্পূর্ণ পুড়ে যায়, পাশ্ববর্তী ৫ তলা নুর জলিল বিল্ডিং এর বেশির ভাগ অংশ ও পুড়ে যায়। আগুন লাগার সাথে সাথে মসজিদের মাইক থেকে বিল্ডিং এর সবাইকে বের হওয়ার আহবান জানানো হয়। এতে করে কোন মানুষের ক্ষতি হয়নি।

আগুনে বিল্ডিংসহ প্রায় দুই থেকে আড়াই কোটি টাকার ক্ষতির আশংকা করা হচ্ছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ মোঈদ ফারুক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল ইমরান রুহুল ইসলাম, কুলাউড়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সাদেক কাউছার দস্তগীর, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন, জুড়ী থানার ওসি সন্জয় চক্রবর্তী, বড়লেখা থানার ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার সহ প্রশাসনের মানুষ।

ফায়ার সার্ভিস মৌলভীবাজারের উপ পরিচালক আব্দুল্লাহ হারুন পাশা বলেন, আগুনে কেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বা কিভাবে আগুন লেগেছে এটা তদন্ত সাপেক্ষে জানা যাবে।

আলোকিত সিলেট/১৭মে/এমবিএইচ

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000