শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:৫৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
শেখ কামাল আন্তঃস্কুল ও মাদ্রাসা এ্যাথলেটিকস্ প্রতিযোগিতার উদ্ভোধনসৈয়দপুরে সাবেক এমপি আমজাদ হোসেন সরকারসহ ৩ বিএনপি নেতার স্মরনসভা অনুষ্ঠিতমিরেরচরেই হবে টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ -বিশ্বনাথে এমপি মোকাব্বিরনীলফামারীর কিশোরগঞ্জে ভূয়া এনএসআই সদস্যসহ আটক-২ওসমানীনগরের নবগ্রাম স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র পরিষদ কমিটি গঠনবাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা কমিটি গঠনসৈয়দপুরে বিসিক শিল্পনগরীতে প্লাইউড কারখানায় আগুনে কোটি টাকার ক্ষতিজামায়াত আমীর ডাঃ শফিকুর রহমানকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে লন্ডনে বিক্ষোভ সমাবেশছাতকের খুরমা উচ্চ বিদ্যালয়ে মহান বিজয় দিবসে আলোচনা সভানীলফামারীর সৈয়দপুরে মহান বিজয় দিবস পালিত

জামানত হারালেন গোলাপঞ্জ ও জকিগঞ্জের নৌকার দুই প্রার্থী

ডেস্ক রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪৭০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সিলেটের গোলাপগঞ্জ ও জকিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে প্রয়োজনীয়সংখ্যক ভোট না পাওয়ায় জামানত হারাচ্ছেন আওয়ামী লীগের দলীয় দুই প্রার্থী। এরমধ্যে গোলাপগঞ্জে নৌকা প্রতীকে নিয়ে নির্বাচন করা মোহাম্মদ রুহেল আহমদ পেয়েছেন ১১৭৫ ভোট আর জকিগঞ্জে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা মো. খলিল উদ্দিন পেয়েছেন ৬৬৯ ভোট।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্দেশনা অনুযায়ী প্রদত্ত মোট ভোটের আট ভাগের মধ্যে এক ভাগ ভোট না পাওয়ায় তাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।
শনিবার (৩০ জানুয়ারি) তৃতীয়ধাপে সিলেটের এ দুই পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে গোলাপগঞ্জ পৌরসভার ২২ হাজার ৯১৬ জন ভোটারের মধ্যে ১৫ হাজার ৭৯৬ জন ভোটার তাদের ভোট প্রদান করেছেন। ভোটের হার ৭০ দশমিক ৫ শতাংশ। গোলাপগঞ্জ পৌরসভায় ৫ হাজার ৮৫১ ভোট পেয়েছে জয়ী হয়েছেন জগ প্রতীকে নিয়ে নির্বাচন করা মো. আমিনুল ইসলাম রাবেল।

এছাড়া মোবাইলফোন প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা জাকারিয়া আহমদ পাপলু পেয়েছেন ৪৫৪৮ ভোট, ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী পেয়েছেন ৪ হাজার ২২২ ভোট আর নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা মো. রুহেল আহমদ পেয়েছেন মাত্র ১ হাজার ১৭৫ ভোট। ভোটের হিসেবে চার মেয়র প্রার্থীর মধ্যে সবশেষ অবস্থান তাঁর। এর বাইরে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেও জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্দেশনা অনুযায়ী প্রদত্ত মোট ভোটের আট ভাগের মধ্যে এক ভাগ ভোট কোনো প্রার্থী না পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হবে। সেই হিসেবে জামানত ঠিকিয়ে রাখতে হলে প্রয়োজন ২০০৭ ভোট। কিন্তু মো. রুহেল আহমদ পেয়েছেন মাত্র ১ হাজার ১৭৫ ভোট। এ হিসেবে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

একই অবস্থা সিলেটের জকিগঞ্জেও। এই পৌরসভায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। পৌরসভায় ১২ হাজার ৩৩৮ জন ভোটারের মধ্যে ৯ হাজার ৭৪০ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

সীমান্তবর্তী এ পৌরসভায় ভোট প্রদানের হার ৭৮ দশমিক ৯৪ শতাংশ। এখানে প্রদত্ত মোট ভোটের আট ভাগের মধ্যে এক ভাগ ভোট হলো ১২১৮ টি। তবে এ পৌরসভায় ৮ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ৫ জনই জামানত হারিয়েছেন। এরমধ্যে রয়েছেন নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা মো. খলিল উদ্দিনও। তিনি পেয়েছেন মাত্র ৬৬৯ ভোট।

এর বাইরে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা আব্দুল মালেক ফারুক পেয়েছেন ৭৫৯ ভোট, আব্দুল্লাহ আল মামুন হিরা চামচ প্রতীকে পেয়েছেন ১৮৫ ভোট, ইকবাল আহমদ তাপাদার ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৬০৭ ভোট এবং মো. জাফরুল ইসলাম হ্যাঙ্গার প্রতীকে পেয়েছেন ১১৫৬ ভোট। জামানত টিকিয়ে রাখার জন্য পর্যাপ্ত ভোট না পাওয়ায় এ চার মেয়র প্রার্থীরও জামানত বাজেয়াপ্ত হচ্ছে।

এ পৌরসভায় বিজয়ী হয়েছেন মো. আব্দুল আহাদ। তিনি নারিকেল গাছ প্রতীকে পেয়েছেন ২০৮৩ ভোট। আর তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফারুক আহমদ জগ প্রতীকে পেয়েছেন ২০৮১ ভোট। অন্যদিকে মোবাইল ফোন প্রতীকে ১৯৮৫ ভোট পেয়েছেন মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান।
সুত্র: সিলেট ভয়েস

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000