বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৯:১৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বিশ্বনাথে বিভিন্ন স্থানে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন এসএম নুনু মিয়াবিশ্বনাথে বন্যার্তদের মাঝে বেইত আল-খাইর সোসাইটি’র খাদ্যসামগ্রী বিতরণবিশ্বনাথে আশ্রয়ণ প্রকল্পে এসএম নুনু মিয়ার এান ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণসাংসদ আদেলের বরাদ্দে খাতামধুপুরের সুতারপাড়াবাসী পেলো হেরিং বোন রাস্তারাজনগরে ভোটার তালিকা হালনাগাদ সমন্বয় কমিটির সভাএনটিভির ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে খাবার বিতরণ ও চিকিৎসা সহায়তা প্রদানবিশ্বনাথে বন্যার্তদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার এান ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন নুনু মিয়ারাজনগরে কৃষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও কৃষি অফিসারের কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধনবিশ্বনাথে থানা পুলিশের উদ্যোগে খাদ্যসামগ্রী বিতরণছাতকে ইমাম মোয়াজ্জিন গণকে খাদ্য সামগ্রী উপহার দিলেন সাহেল

জামানত হারালেন গোলাপঞ্জ ও জকিগঞ্জের নৌকার দুই প্রার্থী

ডেস্ক রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৩২২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সিলেটের গোলাপগঞ্জ ও জকিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে প্রয়োজনীয়সংখ্যক ভোট না পাওয়ায় জামানত হারাচ্ছেন আওয়ামী লীগের দলীয় দুই প্রার্থী। এরমধ্যে গোলাপগঞ্জে নৌকা প্রতীকে নিয়ে নির্বাচন করা মোহাম্মদ রুহেল আহমদ পেয়েছেন ১১৭৫ ভোট আর জকিগঞ্জে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা মো. খলিল উদ্দিন পেয়েছেন ৬৬৯ ভোট।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্দেশনা অনুযায়ী প্রদত্ত মোট ভোটের আট ভাগের মধ্যে এক ভাগ ভোট না পাওয়ায় তাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।
শনিবার (৩০ জানুয়ারি) তৃতীয়ধাপে সিলেটের এ দুই পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে গোলাপগঞ্জ পৌরসভার ২২ হাজার ৯১৬ জন ভোটারের মধ্যে ১৫ হাজার ৭৯৬ জন ভোটার তাদের ভোট প্রদান করেছেন। ভোটের হার ৭০ দশমিক ৫ শতাংশ। গোলাপগঞ্জ পৌরসভায় ৫ হাজার ৮৫১ ভোট পেয়েছে জয়ী হয়েছেন জগ প্রতীকে নিয়ে নির্বাচন করা মো. আমিনুল ইসলাম রাবেল।

এছাড়া মোবাইলফোন প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা জাকারিয়া আহমদ পাপলু পেয়েছেন ৪৫৪৮ ভোট, ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী পেয়েছেন ৪ হাজার ২২২ ভোট আর নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা মো. রুহেল আহমদ পেয়েছেন মাত্র ১ হাজার ১৭৫ ভোট। ভোটের হিসেবে চার মেয়র প্রার্থীর মধ্যে সবশেষ অবস্থান তাঁর। এর বাইরে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেও জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্দেশনা অনুযায়ী প্রদত্ত মোট ভোটের আট ভাগের মধ্যে এক ভাগ ভোট কোনো প্রার্থী না পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হবে। সেই হিসেবে জামানত ঠিকিয়ে রাখতে হলে প্রয়োজন ২০০৭ ভোট। কিন্তু মো. রুহেল আহমদ পেয়েছেন মাত্র ১ হাজার ১৭৫ ভোট। এ হিসেবে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

একই অবস্থা সিলেটের জকিগঞ্জেও। এই পৌরসভায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। পৌরসভায় ১২ হাজার ৩৩৮ জন ভোটারের মধ্যে ৯ হাজার ৭৪০ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

সীমান্তবর্তী এ পৌরসভায় ভোট প্রদানের হার ৭৮ দশমিক ৯৪ শতাংশ। এখানে প্রদত্ত মোট ভোটের আট ভাগের মধ্যে এক ভাগ ভোট হলো ১২১৮ টি। তবে এ পৌরসভায় ৮ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ৫ জনই জামানত হারিয়েছেন। এরমধ্যে রয়েছেন নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা মো. খলিল উদ্দিনও। তিনি পেয়েছেন মাত্র ৬৬৯ ভোট।

এর বাইরে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা আব্দুল মালেক ফারুক পেয়েছেন ৭৫৯ ভোট, আব্দুল্লাহ আল মামুন হিরা চামচ প্রতীকে পেয়েছেন ১৮৫ ভোট, ইকবাল আহমদ তাপাদার ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৬০৭ ভোট এবং মো. জাফরুল ইসলাম হ্যাঙ্গার প্রতীকে পেয়েছেন ১১৫৬ ভোট। জামানত টিকিয়ে রাখার জন্য পর্যাপ্ত ভোট না পাওয়ায় এ চার মেয়র প্রার্থীরও জামানত বাজেয়াপ্ত হচ্ছে।

এ পৌরসভায় বিজয়ী হয়েছেন মো. আব্দুল আহাদ। তিনি নারিকেল গাছ প্রতীকে পেয়েছেন ২০৮৩ ভোট। আর তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফারুক আহমদ জগ প্রতীকে পেয়েছেন ২০৮১ ভোট। অন্যদিকে মোবাইল ফোন প্রতীকে ১৯৮৫ ভোট পেয়েছেন মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান।
সুত্র: সিলেট ভয়েস

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000