সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৮:১৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
নীলফামারীর সৈয়দপুর ট্রেনে কাটা পড়ে যুবকের শরীর তিন খন্ডদুমকিতে আর্জেন্টিনা সমর্থকদের আনন্দ শোভাযাত্রানীলফামারীর সৈয়দপুরে ৫ টি দোকান আগুনে পুড়ে ছাই, ২০ লাখ টাকার ক্ষতিওসমানীনগরে বাড়ির উঠান দিয়ে রাস্তা নিতে প্রতিবন্ধি পরিবারে হামলানীলফামারীর সৈয়দপুরে থানা ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠিতছাত্রদল নেতা নয়ন হত্যার প্রতিবাদে সৈয়দপুরে বিএনপি বিক্ষোভ সমাবেশওসমানীনগরে কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণবালাগঞ্জে ফ্রান্স প্রবাসী কমিউনিটি নেতা সুমন এর পিতৃবিয়োগবকশীগঞ্জের বাঘাডুবি দাখিল মাদ্রাসা সুপারসহ ৬ জন শিক্ষককে বিদায়ী সংবর্ধনাসৈয়দপুর ক্রীড়া সংস্থা চ্যাম্পিয়ন রানার আপ পৌরসভা একাদশ

ওসমানীনগরে বিদ্যালয়ের অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ

রিপোটারের নাম
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর, ২০২২
  • ৫৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সিলেটের ওসমানীনগরের এক অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে একই বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্তের নাম স্বপন মালাকার (১৯)। সে উপজেলার উমরপুর ইউনিয়নের খুজগিপুর গ্রামের পিরু মালাকারের ছেলে ও খুজগীপুর মান উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী।



বিষয়টি নিস্পত্তির ভার স্থানীয় ইউপি সদস্যের উপর রয়েছে বলে জানায় ভিকটিম ও অভিযুক্তের পরিবার। ঘটনার পর গেল ৭দিন ধরে অফিস সহকারী স্বপন মেডিকেল ছুটিতে রয়েছেন এবং গেল সোমবারে বসত ঘরের ফ্যানের সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেন। অন্যদিকে ভিকটিম মেয়েটি বাড়ি ছেড়ে তার ভাইদের সাথে সিলেট শহরে অবস্থান নিচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ব্যাপক সমালোচনার ঝড় বইছে।
জানা যায়, গেল দুর্গা পূজার সময় গভীর রাতে অফিস সহকারী খুজগীপুর মান উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশর্^বর্তি এক গ্রামে একই গোত্রের এক এসএসসি পরীক্ষার্থী মেয়ের বাড়িতে আসেন। রাতে ঘরের ভিতরে পরপুরুষের খবর পেয়ে ঐ মেয়ে শিক্ষার্থীর ভাইয়েরা স্বপনকে আটকে রেখে মারধর করে স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল মুকিদ কে বিষয়টি জানান।

খবর পেয়ে ইউপি সদস্য আব্দুল মুকিদ ঘটনাস্থলে গিয়ে রাতে তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে তার পরিবারের হাতে তুলে দেন। এবং তিনি পারিবারিকভাবে বিবাহের মাধ্যমে বিষয়টি নিস্পত্তি করে দেওয়ার আশ্বাস দেন। ঘটনার পর অভিযুক্ত স্বপন তার বসত ঘরের তীরের সাথে গলায় রশি পেছিয়ে আত্মহত্যার চেষ্ঠা করে। অন্যদিকে লোক লজ্জার ভয়ে ভিকটিম মেয়েটি বাড়ি ছেঢ়ে তার ভাইদের সাথে সিলেট শহরে অবস্থান নিচ্ছে। গত ১৯ অক্টোবর বিষয়টি জানতে পেরে ওসমানীনগর থানার অফিসার্স ইনচার্জ এসএম মাঈন উদ্দিন রাতে ২বার অভিযুক্তের বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়েছেন, কিন্তু পুলিশ অভিযুক্ত স্বপনকে বাড়িতে পায়নি। তাছাড়া ভিকটিমের বাড়িতে পুলিশ গেলে ভিকটিমকেও বাড়িতে পাওয়া যায়নি।

ভিকটিমের বাবা জানান, দূর্গা পূজার রাতে স্বপন আমার বাড়িতে এসে একটি অঘটন ঘটায়। আমরা গরীব মানুষ। স্থানীয় মেম্বার বিষয়টি নিস্পত্তি করে দেবেন বলে আমাদের শান্ত থাকার কথা বলেছিলেন, মেম্বার সাব বিষয়টি শেষ করে দেবেন এই আশায় আছি।

অভিযুক্তের বাবা পিরু মালাকার বলেন,পূজার সময় আমরা একে অন্যের বাড়িতে যাই। একই সম্প্রদায়ের হওয়ায় আমার ছেলে তাদের বাড়িতে গিয়েছিল। তারা আমার ছেলেকে প্রথমে চোর সাঁজিয়ে মারধর করেছে, এখন বলছে আমার ছেলে ধর্ষণ করেছে। আমার ছেলের মাথায় দা দিয়ে তারা কোপ দেয় এতে ৮টা সেলাই লাগে। স্থানীয় মেম্বার সাব বিষয়টি নিস্পত্তি করে দেবেন বলে আমাদের বলেছিলেন,এখনও শেষ করেন নি। আমার ছেলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

স্বপন মালাকারের বাড়ির পাশের র্বাসিন্দা লাকি বেগম বলেন,বিষয়টি ষড়যন্ত্রমূলক। গত পরশু লজ্জা সইতে না পেরে স্বপন ঘরে ফ্যানের সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করতে চেয়েছিল। আমি নিজে গিয়ে তাকে ফ্যান থেকে ছাড়িয়েছি।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রণধীর মোহন দেব বলেন, আমাদের কাছে এ বিষয়ে কোন অভিযোগ আসেনি। তবে স্বপন ৭দিনের মেডিকেল ছুটিতে রয়েছে, সে বিদ্যালয়ে আসছেনা।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবুল হোসেন বলেন,শুনেছি একই সম্প্রদায়ের আত্মীয়তার সূত্র ধরে রাতে বাড়িতে গেলে তাকে আটক করে মারধর করা হয়েছে। স্থানীয় মেম্বার ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করেছেন। তিনি বিষয়টি নিস্পত্তি করে দেবেন বলে শুনেছি। প্রথমে তার বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগ দেওয়া হয়েছিল, এখন শুনছি ধর্ষণের বিষয়। তবে আমাদের কাছে কোন অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ আসলে মিটিংএ এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা করে পরবর্তি সিদ্ধান্ত নেব।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল মুকিদ বলেন, স্থানীয় নির্বাচনের জন্য বিষয়টি শেষ করতে পারিনি। দু’এক দিনের মধ্যেই উভয় পরিবারকে নিয়ে বসে বিবাহের মাধ্যমে বিষয়টি নিস্পত্তি করে দেব।

এ ব্যপারে ওসমানীনগর থানার অফিসার্স ইন্চার্জ এস এম মাঈন উদ্দিন বলেন, আমি বিষয়টি গত বুধবার রাতে শুনে সাথে সাথে উভয় বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়েছি। ভিকটিম এবং অভিযুক্তকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। আমরা কোন অভিযোগ পাইনি, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000