সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নারী নেটওয়ার্কের সাথে সভা ও কমিটি গঠন বিশ্বনাথেমধ্যমবার ফুটবল টুর্নামেন্টের এক ম্যাচ দুই দিনে সম্পন্ন সিলেটের বিশ্বনাথেনিজের গলায় নিজে ছুরি চালিয়ে বিশ্বনাথের লামাকাজীতে যুবকের আত্মহত্যাসাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদার জামিন বাড়লো আরো ৬ মাসসালমান শাহর ৫০ তম জন্ম বার্ষিকী ও মহান স্বাধীনতার ৫০ বছর –বি,এন,পি নেতা মরহুম গেদাই মিয়ার ৫ম মৃত্যু বার্ষিকীতে বালাগঞ্জ উপজেলা বি,এন,পির উদ্দ্যোগে শোক সভা ও দোয়া মাহফিলকার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত সিলেট জেলা আ’লীগেরনদীতে গোসল করতে নেমে কিশোর নিখোঁজ সৈয়দপুরে ফায়ার সার্ভিস ডুবুরি দলের চেষ্টা অব্যাহতমর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় গোলাপগন্জে ঘটনাস্হলেই দাদা নাতি নিহতইউএনও অফিসের সহকারি বিতর্কিত ফয়সল জগন্নাথপুর থেকে বদলি সর্বত্রই স্বস্থি

অ্যান্তোনিও গুতেরেস আবারো জাতিসংঘ মহাসচিবের দায়িত্ব নিলেন

রিপোটারের নাম
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৯ জুন, ২০২১
  • ৬৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্টারঃ টানা দ্বিতীয় মেয়াদে জাতিসংঘের মহাসচিব হিসেবে শপথ নিয়েছেন অ্যান্তোনিও গুতেরেস। গতকাল শুক্রবার দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনি বিশ্বজুড়ে চলমান করোনা মহামারি থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা কাজে লাগানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

২০২২ থেকে ২০২৬ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘের শীর্ষ পদে দায়িত্ব পালন করবেন ৭২ বছর বয়সী পর্তুগীজ রাজনীতিবিদ গুতেরেস। এর আগে গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের ভোটাভুটিতে গুতেরেসকে আরেক মেয়াদে দায়িত্ব দেয়ার জন্য সুপারিশ করা হয়। মূলত নিরাপত্তা পরিষদের সুপারিশই সব সময় পালন করে সাধারণ পরিষদ। ফলে আগামী বছরের ১ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে গুতেরেসের দ্বিতীয় মেয়াদের কার্যক্রম। জাতিসংঘ মহাসচিব পদটির মেয়াদ পাঁচ বছর।

জাতিসংঘের সদরদফতর নিউইয়র্কে শপথ গ্রহণের পর সংবাদ সম্মেলনে গুতেরেস বলেন, ‘আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ, সামনে বড় একটি সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এই সমস্যাকে (করোনাভাইরাস মহামারি) বদলে দিয়ে এমন একটি বিশ্ব তৈরি করা, যা থেকে শিক্ষা নেয়া যেতে পারে।’

বান কি মুনের পর ২০১৭ সাল থেকে জাতিসংঘের মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছেন অ্যান্তোনিও গুতেরেস। ১৯৯৫ সাল থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত তিনি পর্তুগালের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। এছাড়া ২০০৫ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন গুতেরেস। সোশ্যালিস্ট ইন্টারন্যাশনালের সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

অ্যান্তোনিও গুতেরেস ছাড়াও আরও ১০ জন এ পদের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বী হতে চেয়েছিলেন। কিন্তু শুধু পর্তুগাল ছাড়া সদস্য দেশগুলোর কেউই আনুষ্ঠানিকভাবে কারও নাম প্রস্তাব না করায় কেউ প্রার্থী হতে পারেননি।

রোহিঙ্গা পরিস্থিতি দেখতে ২০১৮ সালে জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস, বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম ও আন্তর্জাতিক রেডক্রসের প্রেসিডেন্ট পিটার মরাসহ উচ্চপর্যায়ের পাঁচ ব্যক্তিত্ব বাংলাদেশ সফর করেন। এ সময় তারা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এরপর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এক অনুষ্ঠানে যোগ দেন জাতিসংঘ মহাসচিব। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে অ্যান্তোনিও গুতেরেস সরাসরি বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শনে যান।

১৯৪৯ সালের ৩০ এপ্রিল পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে জন্মগ্রহণ করেন অ্যান্তোনিও গুতেরেস। সেখানেই তার শৈশবকাল অতিবাহিত হয়। তার বাবা ভার্জিলিও ডায়াস গুতেরেস ও মাতা ইল্দা কান্ডিডা দে অলিভেইরা।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD
jphostbd-15000